Thursday, May 23, 2024
লাইফস্টাইলমাটির কলসিতে শরীরের উপকার 

মাটির কলসিতে শরীরের উপকার 

অনেকেই অন্যান্য খাবার ফ্রিজে রাখলেও গরমকালে মাটির কলসিতেই জল রাখেন। কারণ মাটির পাত্রে জল রাখলে তা যেমন ঠান্ডা থাকে, তেমনই শরীরেরও উপকার হয়।

আসলে মাটির পাত্রে অসংখ্য আণুবীক্ষণিক ছিদ্র থাকে।এই ছিদ্রগুলি দিয়ে অল্প পরিমাণ জল চুঁইয়ে বাইরের পৃষ্ঠে আসে ও বাষ্প হয়ে যায়। জল বাষ্পীভূত হওয়ার সময়ে কিছুটা তাপ শোষণ করে নেয়। ফলে ঠান্ডা থাকে পাত্র। তাই গরমের দিনে ঠান্ডা জল খেতে হলে ফ্রিজ়ের জল না খেয়ে মাটির কলসির জল খাওয়াই ভাল। এখন প্রশ্ন হলো, রোজকার জীবনে এই সামান্য বদল আনার পর কী কী লাভ হবে শরীরের? উত্তর হলো নানা কাজের প্রয়োজনে না চাইলেও রোদে বেরোতে হয় অনেককেই।তীব্র গরমে অনেকেই হিট স্ট্রোকে আক্রান্ত হন। মাথা ঘোরা, বমি বমি ভাব দেখা দেয়।বাড়ি ফিরে সেই সময়ে মাটির পাত্র থেকে জল খেলে স্বস্তি মেলে। এতে থাকা খনিজ ও ভিটামিন শরীর চাঙ্গা রাখতে সাহায্য করে। অন্যদিকে ফ্রিজ়ের কনকনে ঠান্ডা জল খেলে গলায় সংক্রমণের ঝুঁকি থেকেই যায়। যাঁদের ঠান্ডা লাগার ধাত রয়েছে, তাঁরা অনেক বেশি সমস্যায় পড়েন ফ্রিজ়ের জল খেলে। অথচ মাটির পাত্রের জল খেলে শরীর তৃপ্ত হয় আর এতে গলার সংক্রমণের ঝুঁকিও থাকে না। পাশাপাশি মাটির কলসিতে জল রাখলে পরিপাকতন্ত্র উন্নত হয়। পাকস্থলীতে খাবার হজমের জন্য অনেক রকম অ্যাসিড তৈরি হয়। মাটির পাত্রে জল রাখলে জলে ক্ষার জাতীয় উপাদানের পরিমাণ বৃদ্ধি পায়। ফলে এই জল খেলে পেটের বিভিন্ন প্রকার অ্যাসিড কিছুটা প্রশমিত হয়, অম্ল-ক্ষারের ভারসাম্য বজায় থাকে। গরমে হজম করতে অসুবিধা হয়, মাটির পাত্রে রাখা জল খেলে ভাল হজম হয়।

More News

উত্তর-পশ্চিম ভারতে তাপপ্রবাহের সতর্কতা, দক্ষিণে বৃষ্টি 

0
দক্ষিণ এবং পূর্ব ভারত স্বস্তি পেলেও আবার তাপপ্রবাহের কবলে পড়তে চলেছে উত্তর-পশ্চিম ভারত। মৌসম ভবন...

কালবৈশাখী ৫০-৬০ কিমি বেগে, সঙ্গে বৃষ্টি, দক্ষিণে সতর্কতা

0
রবিবার থেকেই দক্ষিণবঙ্গের সব জেলায় বৃষ্টি শুরু হতে পারে।এমনটাই জানিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। সেই সঙ্গে...

রবিবার পর্যন্ত তাপপ্রবাহের পূর্বাভাস, বৃষ্টির সম্ভাবনাও

0
তীব্র তাপপ্রবাহ কিছুটা কমলেও রবিবার পর্যন্ত তাপপ্রবাহের পূর্বাভাস রয়েছে রাজ্যে। তবে আগামী ৪-৫ দিনে ২-৩...