১২ ফেব্রুয়ারি ৪ পুরভোট

0
6

৩ সপ্তাহ পিছিয়ে গেল ৪ কর্পোরেশনের পুরভোট। ২২ জানুয়ারির বদলে ১২ ফেব্রুযারি ভোট করার ঘোষণা করেছে রাজ্য নির্বাচন কমিশন। পুরভোট পিছনো নিয়ে রাজ্যের অনুরোধের পর বিজ্ঞপ্তি জারি করে এই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দিয়েছে রাজ্য নির্বাচন কমিশন।

তবে গণনা নিয়ে এখনও কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি। নির্বাচন কমিশন আরও জানিয়েছে আদালতকে সম্মান জানিয়ে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে নতুন করে প্রচার নিয়ে কিছু সিদ্ধান্ত হয়নি। পূর্ববিধিনিষেধই বজায় থাকবে। ৭২ ঘণ্টা আগে প্রচার বন্ধ করতে হবে বলে কমিশনের সচিব জানিয়েছেন। আগেই রাজ্য সচিবালয় নবান্নের তরফে রাজ্য নির্বাচন কমিশনকে চিঠি দিয়ে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে কমিশন ভোট পিছিয়ে দিলে সরকারের কোনও আপত্তি নেই। নবান্নের চিঠি পাওয়ার পরে ভোট পিছনোর সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছে কমিশন। ২২ জানুয়ারি ভোট হওয়ার কথা ছিল বিধাননগর, শিলিগুড়ি, আসানসোল এবং চন্দননগর পুরসভার। কিন্তু কোভিড পরিস্থিতিতে এই পুরভোট নিয়ে আপত্তি তুলে আদালতে মামলা হয়। এই পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্ট রাজ্য নির্বাচন কমিশনকে ভোটের তারিখ পুনর্বিবেচনার অনুরোধ জানায়। কোভিড আবহে জনস্বাস্থ্যের কথা মাথায় রেখে ভোট পিছিয়ে দেওয়ার পরামর্শ দেয়। এব্যাপারে কমিশনকেই সিদ্ধান্ত নিতে বলে হাইকোর্ট। এদিকে করোনা সংক্রমণ নিয়ে কলকাতা হাইকোর্টের অবজারভেশন এবং তত্পরতার পরেই তড়িঘড়ি তৃণমূল কংগ্রেসও ভোট পিছিয়ে দেওয়ার পক্ষেই ছিল। বিরোধীরা তো আগের থেকেই নির্বাচন পিছনোর পক্ষে সরব হয়েছিল। কদিন আগে তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ও কোভিড আবহে ভোট পিছিয়ে দেওয়ার পক্ষে সওয়াল করেছিলেন।