Home সব খবর সলমন ‘অন্তিম: দ্য ফাইনাল ট্রুথ’

সলমন ‘অন্তিম: দ্য ফাইনাল ট্রুথ’

0
33

অন্তিম: দ্য ফাইনাল ট্রুথ। মারাঠি সিনেমা মুলশি প্যাটার্ন-এর রিমেক অন্তিম: দ্য ফাইনাল ট্রুথ। তবে তাঁকে বলিউডের ধাঁচে ফেলেছেন পরিচালক মহেশ মাঞ্জরেকর।

পাশাপাশি নিজের বাস্তব সিনেমার পরশও দিয়েছেন।ছবির গল্প শুরু হয় রাহুলের গ্রাম থেকে।যে ব্যবসায়ী তাঁদের জমি কেড়ে নিয়েছে, সেখানেই ওয়াচম্যান হিসেবে কাজ করে রাহুলের বাবা,শচীন খেদকর। এতে অসন্তুষ্ট রাহুল।নিত্যদিন সংসারে ঝামেলা,একদিন রাহুলের বাবার কাজ চলে যায়।রোজগারের আশায় পুরো পরিবার চলে আসে মাণ্ডিতে।সেখান থেকেই রাহুলের গ্যাংস্টার রাহুলিয়া হওয়ার সফর শুরু হয়।যার সাক্ষী পুলিশ অফিসার রাজবীর সিং।এই রাজবীর সিংয়ের চরিত্রেই সলমন খান।প্রথমে স্ক্রিনে দেখা গেল আয়ুষ শর্মাকে। রাহুল ওরফে রাহুলিয়ার কাহিনি দিয়েই সিনেমা শুরু।কয়েক মিনিট পরই যেন বড়পর্দায় বিস্ফোরণ। শিখ বেশে স্ক্রিনে সলমন খান।নিজের চওড়া কাঁধে পুরো সিনেমাকে উতরে দিয়েছেন বলিউডের সুলতান।কাহিনি রাহুলের হলেও তা পুরোটাই রাজবীরের দ্বারা পরিচালিত।সলমনই এ ছবি শেষ কথা। আয়ুষ শর্মা স্বজন বটে তবে তাঁকে পোষণ অবশ্যই করেছেন ভাইজান।শিখ পুলিশ অফিসারের চরিত্রে তিনি ফের ‘দাবাং মুডে। হাতের বালা দিয়েই শত্রুদের চোখের ধুলিসাৎ করেছেন, আবার মগজাস্ত্রের জোরে গুণ্ডাদের রমরমা শেষ করেছেন।কিছু জায়গায় আয়ুষের কাজ অবশ্য খারাপ নয়।তবে বেশিরভাগ জায়গায় শুধুমাত্র ভ্রু উঁচিয়ে ডন সাজার চেষ্টা করেছেন মাত্র।শুধু সলমনের ছত্রছায়া কিংবা সিক্স প্যাক অ্যাবের ভরসায় থাকলে হবে না, অভিনয়ে তাঁকে আরও জোর দিতে হবে। হিন্দি টেলিভিশনের অভিনেত্রী মহিলা মাকওয়ানা,ছবিতে তাঁর সুযোগ বড় কম ছিল। কেবল রাহুলের প্রেমিকা হয়েই রয়ে গেলেন।পিটিয়ার ভূমিকায় যিশু সেনগুপ্তকে দেখেও আশাহত । পিটিয়ার চরিত্রে তাঁর কিছুই করার ছিল না।বাঙালি দর্শক হিসেবে এমন পার্শ্ব চরিত্রে যিশুকে দেখা একটু কষ্টকর।এ ছবিতে অভিনয়ে বাজিমাত করেছেন শচীন খেদকর ও মহেশ মাঞ্জরেকর।ছোট্ট ছোট্ট সিনেই মুগ্ধ করেছেন।বিশেষ করে শেষের দৃশ্যে শচীন খেদকরে অট্টহাসির মাধ্যমে বিলাপ করার দৃশ্যটি।