Wednesday, August 17, 2022
লাইফস্টাইলবাঁধাই দাঁতের যত্ন

বাঁধাই দাঁতের যত্ন

স্থায়ী দাঁত ওঠার পর পূর্ণবয়স্ক মানুষ কোনো কারণে তাঁর এক বা একাধিক দাঁত হারালে সুন্দর আরেকটি নকল দাঁত লাগিয়ে নিতে পারেন।এটি দেখতে একদম আসল দাঁতের মতোই হয়।কৃত্রিম দাঁত যে শুধু দেখার সৌন্দর্যের জন্যই লাগানো হয় তা নয়, এর কিছু গুরুত্বপূর্ণ কাজও রয়েছে।

আমাদের পরিপাকের প্রাথমিক কাজ শুরু হয় দাঁত ও লালারসের মাধ্যমে।দাঁতের সাহায্যেই খাবার পিষে মণ্ড আকারে পাকস্থলীতে পাঠাই আমরা। যাতে পাকস্থলীর রসের সাহায্যে তা হজম হতে পারে। এ ছাড়া কথা বলতে বা উচ্চারণে দাঁতের সাহায্যের প্রয়োজন হয়। দাঁতের অনুপস্থিতিতে মুখের পেশি ঢিলে হয়ে যায়।ফলে চেহারায় বয়স্কভাব চলে আসে।একটি দাঁতের অভাবেও মুখের স্বাভাবিক বিন্যাস নষ্ট হতে পারে। এর ফলে অন্য দাঁতগুলো নড়বড়ে ও বাঁকা হয়ে যেতে পারে।এ জন্য কোনোভাবে দাঁত ক্ষতিগ্রস্ত হলে সেটি প্রতিস্থাপন করে নেওয়া খুব জরুরি। কৃত্রিম দাঁত খুলে আবার লাগানো যায়, যাকে বলা হয় ডেনচার। ডেনচারের মধ্যে ফ্লেক্সিবল ডেনচার ব্যবহারে আরাম। এটা সুবিধামতো খোলা ও পরা যায়।এক বা একাধিক দাঁতের পরিবর্তে ব্যবহারের জন্য ক্রাউন বা ব্রিজ করা যায়। এগুলো দাঁতের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে তৈরি করা যায়।এ ছাড়া আধুনিক ডেন্টাল ইমপ্লান্টের মাধ্যমে দাঁত প্রতিস্থাপন করা যায়।এই অবস্থায় বাঁধাই করা দাঁত দিয়ে দৈনন্দিন স্বাভাবিক সব খাবার খাওয়া যায়। শুধু শক্ত হাড় বা যেকোনো ফলের শক্ত বিচি এসব দাঁত দিয়ে জোরে চিবিয়ে না খাওয়াই ভালো। এ ছাড়া আঁশযুক্ত খাবার টেনে ছিঁড়ে খাওয়া থেকেও বিরত থাকতে হবে। এর বাইরে মাছ, মাংস, মিষ্টি, ফলমূল সবই খাওয়া যাবে।দাঁত ব্রাশের নিয়ম ও দাঁতের যত্ন নেওয়াটাও জরুরি। ডেনচারের মাধ্যমে বাঁধাই করা দাঁতের সুরক্ষায় কিছু নিয়ম মেনে চলতে হয়। নিয়মিত ব্রাশ করতে হবে। টুথপেস্টের বদলে এমন দাঁত খুলে তরল পরিষ্কারক সাবান বা ডিশ ওয়াশিং লিকুইড দিয়ে পরিষ্কার করা ভালো। প্রতিদিন রাতে ব্রাশ করা ছাড়াও প্রতিবার খাবারের পরে জল দিয়ে ধুয়ে নেওয়া উচিত।এগুলো অল্প আঘাতে ভেঙে যেতে পারে, তাই জোর করে বাঁকানো বা সোজা করা উচিত নয়। সব সময় ডেনচার খুলে রাখতে হবে এমন কোনো কথা নেই। তবে খুলে রেখে ঘুমালে মুখের বিশ্রাম হয়। দাঁত খুলে পরিষ্কার জলেতে ডুবিয়ে রাখতে হবে। গরম জলেতে রাখা যাবে না।অন্যদিকে, ক্রাউন, ব্রিজ বা ইমপ্লান্টের মতো ফিক্সড কৃত্রিম দাঁত খোলা বা পরার ঝামেলা নেই। এগুলোর ক্ষেত্রে স্বাভাবিক দাঁতের মতো নিয়মিত দুবেলা দাঁত ব্রাশ করতে হবে। এ ছাড়া সপ্তাহে এক থেকে দুদিন ফ্লস বা মাউথওয়াশ ব্যবহার করলে মুখের ও দাঁতের স্বাস্থ্য সুরক্ষিত থাকবে।

More News

দাঁতে হলদে দাগ

0
দু’বেলা নিয়ম মেনে দাঁত মাজেন প্রায় সবাই।যে কোনও খাবার খাওয়ার পর ভাল করে মুখ ধোয়া...

কখন রুট ক্যানেল প্রয়োজন

0
দাঁত মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কিন্তু সংরক্ষণ করা যেতে পারে,তাই ডেন্টিস্ট রুট ক্যানেলের পরামর্শ দিয়ে থাকেন।রুট...