বাংলায় এবার হিংসা বন্ধ হোক

0
43

বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে। ব্যাপক ভোটে জয়ী হয়ে তৃতীয় বারের জন্যে ক্ষমতায় ফিরেছে তৃণমূল কংগ্রেস। প্রধান বিরোধী দল হিসেবে জায়গা করে নিয়েছে ভারতীয় জনতা পার্টি।

২০২১ সালের নির্বাচনে বাংলা থেকে নিশ্চিহ্ন হয়ে গিয়েছে বামফ্রন্ট এবং কংগ্রেস।ভোট চলাকালীন যেমন বিভিন্ন প্রান্ত থেকে এসেছে হিংসার খবর,তেমনই ফলাফল বেরোনোর পরও জারি থেকেছে হিংসার রাজনীতি।দিকে দিকে পুড়ছে ঘর, মরছে মানুষ।কোন দল দায়ী কিংবা কোন দল দোষী সেই বিচারে যাওয়া অর্থহীন হয়ে পড়ে যখন দেখা যায় ধাক্কা খাচ্ছে মানুষের সুস্থভাবে বেঁচে থাকার অধিকার।এই পরিস্থিতিতে এবার মুখ খুলেছেন অপর্ণা সেন, আবির চট্টোপাধ্যায়, পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়,সৃজিত মুখোপাধ্যায়,স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায়, সুদীপ্তা চক্রবর্তী-র মতো ব্যক্তিত্বরা। ট্যুইট করে অপর্ণা সেন বলেছেন,হিংসার কোনও অন্য নাম হয় না। হিংসা হিংসাই,কোন রাজনৈতিক দল এর জন্যে দায়ী তার তরজায় যাওয়া অপ্রাসঙ্গিক। আবেদন করছেন এই হিংসার ঘটনার জন্যে যারা দায়ী তাদের দ্রুত গ্রেফতার করা হোক।বাংলা অনেক যন্ত্রণা সহ্য করেছে, আর না।আবির চট্টোপাধ্যায় লিখেছেন, একটা অনুরোধ… জয় পেয়েছেন,এবার একটু নমনীয় হন।এই মুহূর্তে শুধুমাত্র মারণ করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধেই হোক লড়াই।সৃজিত মুখোপাধ্যায় তাঁর ট্যুইটে লিখেছেন,সিপিএম-এর দলীয় দফতর পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।যে সব স্বেচ্ছাসেবক মানুষের সেবায় রাতদিন কাজ করছেন তাঁদের আক্রমণ ও হেনস্থা করা হচ্ছে,বিজেপি কর্মীদের হেনস্থা করা হচ্ছে, মেরে ফেলা হচ্ছে।এ কী ধরনের বিজয় উত্‍সব, এর কড়া বিরোধিতা করছেন।পরমব্রত চট্টোপাধ্যায় তাঁর ট্যুইটে লিখেছেন, হিংসাকে কোনওভাবেই সমর্থন করা যায় না।একটা ঘটনা হলেও না।যারা দোষী তাদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে সাজা দেওয়া উচিত। সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেসের এই মুহূর্তে উচিত তাদের দলীয় কর্মীদের কড়া বার্তা দেওয়া,উদাহরণ তৈরি করা। বিপুল ভোটে তৃণমূল জয়ী হয়েছে, তার মর্যাদা রাখা উচিত।স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায়ও ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করেছেন তাঁর বিরক্তি। রাজনৈতিক হিংসা বন্ধ করার, আর্জি জানিয়েছেন স্বস্তিকা।