গাড়ি চালক খুনের পর কর্পোরেট কর্তা, দাবি পুলিশের

0
11
কর্পোরেট কর্তা সুবীর চাকির আগেই তার গাড়িচালক রবীন মণ্ডলকে খুন করা হয়েছিল। রবীন মণ্ডল খুনের সময় তার জন্য কী বিপদ অপেক্ষা করছে, তা ঘুণাক্ষরেও জানতে পারেননি সুবীর চাকি।
সে সময় দোতলার ঘরে তিনি বিশ্রাম নিচ্ছিলেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। গড়িয়াহাটের কাঁকুলিয়া রোডে জোড়া খুন কাণ্ডে তদন্তকারীরা ইতিমধ্যেই পরিচারিকা মিঠু হালদার সহ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে। আর ধৃতদের জেরা করে পুলিশ জানতে পেরেছে, খুনের দিন অর্থাত্ দ্বাদশীর বিকেলে কর্পোরেট কর্তা সুবীর চাকি এবং তার গাড়ি চালক রবীন মণ্ডল আগে কাঁকুলিয়ার বাড়িতে পেঁছন। ওই বাড়িতে পৌঁছে সুবীর চাকি বাড়ির দোতলার ঘরে বিশ্রাম নিতে যান। কিছুক্ষণ পর সেখানে পেঁছয় ভিকি ও তার সঙ্গীরা। তাদের বাড়ির দরজা খুলে দিয়েছিল সুবীর চাকির নিহত গাড়িচালক রবীন মণ্ডল। তিনিই ভিকিদের ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে বাড়ি দেখানোর সময়ে রবীন মণ্ডলকে খুন করা হয়। জানতে পারলে কর্পোরেট কর্তা সুবীর চাচি পালিযে যেতে পারেন এই আশঙ্কায় অত্যন্ত  গোপনীয়তা বজায় রেখেছিল ভিকিরা। এরপর দোতলায় নেমে সুবীর চাকিকে খুন করে তাঁরা। এদিকে, জোড়া হত্যাকাণ্ডের পর ছদিন কেটে গেলেও, এখনও সন্ধান মেলেনি মূল অভিযুক্ত ভিকির। পুলিশের ধারণা, গ্রেফতারি এড়াতে ঘন ঘন অবস্থান পাল্টাচ্ছে ভিকি। জায়গা পাল্টে পুলিশকে বিভ্রান্ত করতে চেয়েছিল ধৃত জাহির গাজিও। পুলিশ জানিয়েছে, জাহিরকে গ্রেফতারির জন্য সুন্দরবনে পুলিশ পেঁছলে রাস্তার কুকুর চিত্কার জুড়ে দেয়। আর তা শুনেই পুলিশ আসছে অাঁচ করে জায়গা পাল্টে ফেলেছিল জাহির।