কড়া নজরদারিতে প্রতিমা নিরঞ্জন

0
11
প্রতিমা বিসর্জনে গঙ্গাদূষণ রুখতে তত্পর পুরসভা মাতমূর্তি জলে পড়তেই তা তুলে নিচ্ছে। এ জন্য গঙ্গারঘাট গুলিতে জেসিবি-ক্যাটারপিলার তৈরি রাখা হয়েছে ।
সরানো হয়েছে ফুল-মালা-বেলপাতা থেকে চাঁদমালা সহ  পুজোয় ব্যবহৃত বিভিন্ন সামগ্রীও। সিঁদুর খেলার মধ্যে দেবীর বিদায়ে আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হওয়ার পর থেকেই বনেদী থেকে বারোয়ারি, একের পর এক প্রতিমা নিরঞ্জনের জন্য গঙ্গায় এসেছে। তবে, কোভিডের কারণে গঙ্গার ঘাটে প্রবেশের ক্ষেত্রে রয়েছে কড়াকড়ি রকমের নিয়ম। পুলিশ ও পুরসভা সূত্রে খবর, পুজোর ঘট বিসর্জনের জন্য সর্বোচ্চ তিনজনকে গঙ্গায় নামার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি, আর্সেনিক ও সীসা যাতে জলের কোনও ক্ষতি করতে না পারে, সেই জন্য প্রতিমা নিরঞ্জনের পরই তা তুলে নেওয়া হয়েছে। গঙ্গার ঘাটে দাঁড়িয়ে প্রতিমা নিরঞ্জন প্রক্রিয়া তদারক করেছেন কলকাতার প্রশাসক মণ্ডলীর সদস্য দেবাশিস কুমার। এদিকে, বিসর্জন ঘিরে যাতে কোনওরকম অপ্রীতিকর পরিস্থিতি তৈরি না হয়, সে জন্য কলকাতার গঙ্গার ঘাটগুলিতে ডেপুটি কমিশনার পদমর্যাদার অফিসারকে রাখা হয়েছে। গঙ্গার ঘাটগুলিতে সিসিটিভিও বসানো হয়েছে। জলপথে নজরদারির জন্য রয়েছে রিভার ট্রাফিক পুলিশ। তৈরি রাখা হয়েছে স্কুবা ডাইভারও। এদিকে, জেলাগুলিতেও কড়া নিরাপত্তায় চলেছে বিসর্জন প্রক্রিয়া ।