হোম কোয়রান্টিনে থাকলে …

0
7

Last Updated on by

ভাইরাসের আক্রমণ যেমন বেড়ে চলেছে, তেমনই পাল্লা দিয়ে বাড়ছে হোম কোয়রান্টিন-এ থাকা মানুষজনের সংখ্যাও। চিকিৎসকেরা এখন অনেককেই পরিস্থিতি অনুযায়ী হাসপাতালের পরিবর্তে হোম কোয়রান্টিন-এ থাকতে পরামর্শ দিচ্ছেন।

পরিবারের দু’জন আক্রান্ত, বা পাঁচ জনেরই করোনা হয়েছে, এই ছবিটা স্বাভাবিক ঘটনা। কিন্তু এক ছাদের তলায় হোম কোয়রান্টিন কতটা কার্যকরী? বলা হচ্ছে ,যে অঞ্চলে রোগ ছড়িয়েছে এমন জায়গা থেকে ঘুরে এলে অথবা রোগাক্রান্ত বা সম্ভাব্য সংক্রমিত ব্যক্তির সংস্পর্শে এলে বা আসার সম্ভাবনা থাকলে সেই ব্যক্তি বা ব্যক্তিদের কোয়রান্টিনে থাকা প্রয়োজন।রোগাক্রান্ত বা সম্ভাব্য সংক্রামিত ব্যক্তির সঙ্গে একই বাড়িতে যাঁরা থেকেছেন, তাঁর মল-মূত্র-থুতু-কফ-হাঁচি-কাশি ইত্যাদির সংস্পর্শে এসেছেন বা অন্য কোনও ব্যবহৃত জিনিস যেমন থালা-বাসন, জামাকাপড়, বিছানা ব্যবহার করেছেন এমন সকলেরই কোয়রান্টিনে থাকা দরকার। তবে তা হাসপাতাল না বাড়িতে হবে, তা চিকিৎসক ঠিক করবেন। পালমোনোলজিস্ট’রা বলছেন,কোভিডে আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে তাঁর সংস্পর্শে আসা মানুষ, সব ক্ষেত্রেই হোম কোয়রান্টিনে থাকা ভালো।হোম কোয়রান্টিনে থাকার ক্ষেত্রে কিছু নির্দিষ্ট নিয়মের উপর জোর দেওয়া হচ্ছে। খোলামেলা, আলো-বাতাসযুক্ত ঘর হোম কোয়রান্টিনের জন্যে উপযুক্ত।বাথরুমের ব্যবস্থা সঙ্গেই থাকা উচিত।একান্ত না থাকলে আলাদা বাথরুমের ব্যবস্থা করা দরকার,যা অন্য কেউ ব্যবহার করবেন না।পরিবারের ২-৩ জন বাড়িতে থাকলে আলাদা ঘরে থাকার ব্যবস্থা নিতে হবে।যদি কোনও পরিবারে দু’জনের সুগার বা ব্লাডপ্রেশার থাকে, তাঁদের দু’জনকে একসঙ্গে একটা ঘরে রেখে বাকিদের আর একটা ঘরে থাকতে হবে। অন্যদিকে,বিছানার চাদর থেকে, বালিশ, স্নানের তোয়ালে প্রত্যেকের আলাদা থাকা উচিত। বাড়িতে বাচ্চা থাকলে সে মায়ের সঙ্গে থাকতে পারে যদি না মায়ের কোনও উপসর্গ দেখা যায়। মনে রাখতে হবে,কোনও অবস্থাতেই বাড়ির বাইরে বা কোনও জমায়েতে যাওয়া চলবে না।বাড়িতে বয়স্ক ব্যক্তি, গর্ভবতী, ছোট বাচ্চা বা অন্য কোনও অসুস্থ ব্যক্তির কাছাকাছি যাওয়া নিষেধ।কোভিড পজিটিভ মানুষের সংস্পর্শে আসা মানুষ যাঁরা বাড়িতে কোয়রান্টিনে আছেন তাঁরা চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে তা প্রতিরোধ করার জন্য হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন খেতে পারেন।দেখা গিয়েছে তাতে সংক্রমণের আশঙ্কা কমে।বাড়ির অন্য সদস্যদের সঙ্গে একই ঘরে থাকলে, বিশেষ করে এক মিটারের মধ্যে আসার সময় কোয়রান্টিনে থাকা ব্যক্তিকে মাস্ক পরতে হবে।অত্যাবশ্যকীয় প্রয়োজনে বাড়ি থেকে বের হলে মাস্ক ব্যবহার করতে হবে।কাপড়ের থ্রি লেয়ার মাস্ক এখন সবচেয়ে নিরাপদ বলে মনে করছেন চিকিৎসকরা। অন্যান্য মাস্ক ব্যবহার করলেও তা ১০-১৫ দিনের বেশি ব্যবহার করা উচিত নয়। কোয়রান্টিনে থাকা ব্যক্তির ঘরের মেঝে এবং বাথরুম প্রতি দিন ব্লিচিং পাউডার মেশানো জল বা ফেনলযুক্ত বাথরুম ক্লিনার দিয়ে পরিষ্কার করতে হবে।কোয়রান্টিনে থাকা ব্যক্তির জামাকাপড়, বিছানাপত্র আলাদা ভাবে কাচাকুচি করতে হবে।সাধারণ ডিটারজেন্ট বা সাবান ব্যবহারই যথেষ্ট। আসলে গোষ্ঠী সংক্রমণ আটকানোর জন্যই এই হোম কোয়রান্টিনের নিয়ম চালু করা হয়েছে। তাই কোয়রান্টিনের নির্দেশাবলী অক্ষরে অক্ষরে পালন করা উচিত। এই সময় পুরোপুরি বাড়ির খাবার খেতে হবে।কার্বোহাইড্রেট বাদ দিলে চলবে না,সঙ্গে হাই প্রোটিন ডায়েট।ডিম, মুর্গি, সবুজ শাকসব্জি থাকতেই হবে। ভরপেট খাবার খাওয়া এ সময়ে সবচেয়ে জরুরি।খিচুড়ি চলতে পারে ,এতে হলুদ, জিরে, এই ধরনের মশলা পড়ে যা শরীরের ইমিউনিটি বাড়াতে সাহায্য করে। খাবারের সঙ্গে মরসুমি ফল খাওয়াও জরুরি।এর পাশাপাশি,হোম কোয়রান্টিনে থাকার সময় শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তোলার জন্য চিকিৎসকেরা কিছু ওষুধের কথা বলছেন।মাল্টিভিটামিন, ভিটামিন সি আর ক্যালসিয়াম-সহ ভিটামিন ডি খেতে বলছেন।এই ওষুধ খেলে শরীরের রোগ প্রতিরোধের লড়াই করার ক্ষমতা বাড়বে, এটাই ভাবা হচ্ছে।এ ছাড়াও যে যা ওষুধ এত দিন ধরে খেয়ে আসছেন সেগুলো একেবারেই বন্ধ করা উচিত হবে না। কোয়রান্টিনে থাকা ব্যক্তির মানসিক অবসাদ, হতাশা, রাগ, অসহায়তা, অস্থিরতা দেখা দিতে পারে। মনে রাখতে হবে করোনা মানে মৃত্যু নয়,এই সংঘাত থেকে নিজেকেই বেরিয়ে আসতে হবে।উদ্বেগ, দুশ্চিন্তা সারা জীবনের সঙ্গী। দেখতে হবে তা যেন কাবু না করে।নিজে যা করতে ইচ্ছে সেগুলো করুন। এই সময় মনের চর্চা করা যেতে পারে ,ইচ্ছেমতো ভাবা যেতে পারে।পরিবার ও বন্ধুবান্ধবের সঙ্গে ফোন, মোবাইল বা ইন্টারনেটে যোগাযোগ রাখতে পারেন। কোনও শিশুকে কোয়রান্টিনে রাখতে হলে তাকে আলাদা করে সময় দিতে হবে।পর্যাপ্ত খেলার সামগ্রী দিতে হবে তাকে এবং খেলনাগুলো খেলার পরে জীবাণুমুক্ত করতে হবে। খুব ক্লান্ত না হলে করতে পারেন অফিসের কাজ।