তৃণমূল নেতৃত্বকে না-জানিয়ে কোথাও সই নয় 

0
4

লোকসভার কোনও সাংসদ যেন দলের কোনও অভ্যন্তরীণ বিষয়ে লিডার-কে না জানিয়ে সই না করেন, এই মর্মে তৃণমূলের সমস্ত লোকসভা সাংসদকে বার্তা পাঠিয়েছেন লোকসভায় তৃণমূলের দলনেতা প্রবীণ সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়। ঠিক কী কারণে সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় ওই বার্তা পাঠিয়েছেন, তা নিয়ে তৃণমূল শিবিরে বিভিন্ন অভিমত রয়েছে।

তবে একটা বিষয়ে সকলেই নিশ্চিত,ওই বার্তা কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় সংক্রান্ত।লিডার বলে সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় কাকে বুঝিয়েছেন, তা স্পষ্ট নয় সাংসদদের কাছে। কয়েকজন মনে করছেন, সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়, দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ে কথা বলতে চেয়ছেন। আবার কয়েকজনের মতে, সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়,লোকসভার নেতা অর্থাৎ, তাঁর নিজের কথা বলতে চেয়েছেন। তৃণমূলের সাংসদদের অনেকে মনে করছেন, কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়-র বিরুদ্ধে সমবেত ভাবে কোনও চিঠি দলীয় নেতৃত্বকে সাংসদরা দিতে পারেন,এমন আশঙ্কা থেকে ওই বার্তা পাঠানো হয়েছে। তৃণমূলের এক শীর্ষ পদাধিকারীর বক্তব্য, কল্যাণ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় অনেক সময়েই সংসদে তৃণমূলের ঘরে বসে অনেক আলটপকা মন্তব্য করে থাকেন।সেগুলি নেতৃত্বকে জানানোর জন্য সাংসদেরা জোটবদ্ধ হয়ে চিঠি লিখতে পারেন।সেই সম্ভাবনা রদ করার জন্য নেতৃত্বের অনুমতি ছাড়া কাউকে কোনও অভ্যন্তরীণ বিষয়ে কোথাও সই করতে বারণ করা হয়েছে। তবে এই ব্যাখ্যা কোনও আনুষ্ঠানিক সমর্থন মেলেনি।আবার অন্য এক শীর্ষ পদাধিকারীর মতে,কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় নিজে সাংসদদের মধ্যে তাঁর বক্তব্যের সমর্থনে সই সংগ্রহ করার উদ্যোগ নিতে পারেন। সে কারণেই লোকসভার দলনেতা সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর সহকর্মী সাংসদদের ওই বার্তা পাঠিয়েছেন। এই ব্যাখ্যারও কোনও আনুষ্ঠানিক সমর্থন মেলেনি।