Tuesday, September 27, 2022
লাইফস্টাইলখাবার-ব্যায়াম-ঘুম নিয়ে ভুল ধারণা

খাবার-ব্যায়াম-ঘুম নিয়ে ভুল ধারণা

ছোটবেলায় মানুষের মাঝে যেকোনো প্রচলিত ভুল তথ্য পুরোপুরি সত্য বলে মনে গেঁথে যায়। অনেকে অপরিপক্ব চিন্তার কারণে এসব ভুল তথ্য বা উপদেশ বড় হয়েও পালন করে চলেন। কিন্তু এগুলো সারা জীবন মেনে চলাটা বোকামি।

অভিজ্ঞদের মতে, এসব ক্ষতিকর বিশ্বাস নিয়ে চলাটা জীবনের জন্য অস্বাস্থ্যকর।বৈজ্ঞানিক ভিত্তি ছাড়া এসব মেনে চলাটাও বোকামি বলেই মনে হয়। এখানে খাবার, ব্যায়াম এবং ঘুম নিয়ে এমনই পাঁচটি প্রচলিত ভুল ধারণা তুলে ধরা হলো, যা আজই ত্যাগ করা জরুরি বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।যেমন ওজন হ্রাস করো,এটা যেকোনো স্বাস্থ্য সচেতন মানুষের কাছে এক অবশ্য পালনীয় মন্ত্রের মতো। কিন্তু ওজন কমাতে বিভিন্ন ধরনের জনপ্রিয় ও প্রচলিত ডায়েট চার্ট মানুষকে বিভ্রান্তিতে ফেলে দেয়।যেমন, দারুণ জনপ্রিয় কিটো ডায়েট নিয়ে অনেক সমালোচনা রয়েছে। বলা হয়, এই তালিকা থেকে পুষ্টি উপাদান গ্রহণকে সীমাবদ্ধ করা হয়েছে। ঘুরেফিরে হাতেগোনা কয়েকটি খাবারেই কিটো ডায়েট আটকে গেছে।কাজেই তা দীর্ঘ মেয়াদে ওজন হ্রাসের চেষ্টাকে ব্যর্থতায় পর্যবসিত করতে পারে বলে মনে করে ইউএস সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন।অন্যদিকে ভুল ধারণা রয়েছে,স্মার্টফোন নিয়ে ঘুমাতে যেতে সমস্যা নেই।শয়নকক্ষের বাতি নেভার আগে শেষবারের মতো সোশ্যাল ফিডে একপলক দেখে নিতে কে না চান! এতে দৃশ্যমান কোনো সমস্যা নেই বলেই জানেন সবাই। কিন্তু রাতে স্মার্টফোন ব্যবহার নিয়ে অনেক গবেষণা হয়েছে। দেখা গেছে, স্মার্টফোনের যথেচ্ছ ব্যবহারের কারণে ঘুম আসতে সমস্যা, কম ঘুম হওয়া, দিনে ক্লান্তি এবং মেজাজ বিগড়ে যাওয়ার মতো সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। স্ক্রিনে তাকিয়ে থাকা পর্যন্ত অতিক্ষতিকর ব্লু লাইটে চোখ ভেসে যায়। এতে দেহে মেলাটনিন হরমোন ক্ষরণের মাত্রা বাধাগ্রস্ত হয়। এই হরমোন দেহঘড়ি নিয়ন্ত্রণ করে।ভুল ধারণা রয়েছে, খাবার ও ব্যায়ামে উৎসাহ মিলতে পারে সোশ্যাল মিডিয়া থেকে।গবেষণায় দেখা গেছে, তরুণ প্রজন্ম মনে করে টিকটক, ফেসবুক বা অন্যান্য সোশাল মিডিয়া থেকে স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণ বা ব্যায়ামের পদ্ধতি ও উৎসাহ মেলে। নিজেকে আরো উন্নত করে তোলার উপাদানগুলো সেখানেই রয়েছে। কিন্তু সেখান থেকে যা মেলে তা হলো,নিজের দৈহিক গড়ন সম্পর্কে বাজে ধারণা তৈরি হওয়া, ওজন ও দেহ নিয়ে অপ্রয়োজনীয় নানা উদ্বেগ ও দুশ্চিন্তার সৃষ্টি, যা কিনা খাদ্যাভ্যাসে বিপর্যয় ডেকে আনা ছাড়া আর কিছুই করে না। কাজেই সোশ্যাল মিডিয়া থেকে খাবার ও ব্যায়াম সম্পর্কে শিক্ষা নেওয়াটা নেহাত বোকামি।আরেকটা ভুল ধারণা হলো,ক্রাঞ্চের মাধ্যমে পেটের চর্বি উধাও হবে।বাস্তবে ব্যায়ামের মাধ্যমে গোটা দেহের চর্বি কমতে থাকে। দেহের বিশেষ কোনো অংশকে টার্গেট করে ব্যায়ামের মাধ্যমে চর্বি হ্রাসের বুদ্ধিটা কার্যকর না-ও হতে পারে। শরীরচর্চায় উৎসাহী প্রজন্ম মনে করে, ক্রাঞ্চের মতো ব্যায়াম দিয়ে কেবল পেটের চর্বি দূর করা সম্ভব। আর,বিশেষজ্ঞদের মতে, চর্বি পোড়াতে কার্ডিও ব্যায়ামে মনোযোগ দিতে হবে।

More News

টিকটকে ডাউনভোট দেওয়ার সুযোগ

0
একটি নতুন ফিচার আনার ঘোষণা করেছে সামাজিক ভিডিও শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম টিকটক, যার মাধ্যমে কমেন্টে ডাউনভোট দিতে পারবেন ইউজার।...

উত্তরাখণ্ডে হুড়মুড়িয়ে পাহাড় ভাঙার ভিডিও ভাইরাল 

0
উত্তরাখণ্ডে পাহাড় হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ার ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরাখণ্ডের তাওয়াঘাট লিপুলেখ জাতীয়...

প্রতারণা কমবে নতুন টেলি আইনে : বৈষ্ণব

0
নতুন টেলিযোগাযোগ আইন তৈরি হলে মোবাইলের সাহায্যে প্রতারণা, ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা চুরি, সাইবার জালিয়াতির...