নখের যত্নে করণীয়

0
10

নখ সৌন্দর্য কয়েক গুণ বাড়িয়ে দেয়। নখের সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে নেইল আর্ট আকর্ষণীয় এক ট্রেন্ড। বিয়ে, পার্টিসহ নানা উপলক্ষে নখে নকশার আঁকিবুঁকি করেন মহিলারা।

তবে নখ ভালো রাখতে নেল আর্টে মাঝেমধ্যে বিরতি দেওয়া উচিত। নিয়মিত নেলপলিশ ব্যবহার করবেন না। এতে নখের স্বাভাবিক ঔজ্জ্বল্য ক্ষতিগ্রস্ত হয়।নেল আর্টের সময় অবশ্যই ভালো মানের নেলপলিশ ব্যবহার করা উচিত। সস্তা নেলপলিশে সিসা-জাতীয় পদার্থ বেশি থাকে। এতে নখ শুকনো হয়ে যায়।অন্যদিকে অনেকেই নখের সৌন্দর্যে কৃত্রিম নখ ব্যবহার করেন।বাজারেও নানা ধরনের কৃত্রিম নখ কিনতে পাওয়া যায়। আঠা দিয়ে আঙুলের নখের ওপর এই কৃত্রিম নখ আটকে দেওয়া হয়।পার্টি, ফটোশুট, বিয়েসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানের বেলায় মহিলারা এমন নখ বেশি ব্যবহার করে থাকেন।বলা হয়,ভালো ব্র্যান্ডের কৃত্রিম নখ ব্যবহার করা উচিত। তবে তা বেশিক্ষণ পরে থাকা ঠিক নয়। অনুষ্ঠান থেকে ফিরেই নখগুলো যত্নসহকারে তুলে রেখে দিন। চেষ্টা করুন সত্যিকারের নখ নিয়েই সন্তুষ্ট থাকার। কেননা কৃত্রিম নখ ব্যবহার করলে অসাবধানতায় তা আসল নখের ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে।বলে রাখা ভালো,নখের চারপাশের চামড়া কুঁচকে গেলে কিংবা কিউটিকল উঠতে দেখলে হা-হুতাশ করবেন না। অনেকেই এই কিউটিকলগুলো পুরো অপসারণ করেন। এ কারণেও নখ দেবে যেতে পারে। বৃষ্টি ও কাদাজলেতে বেশি হাঁটাহাঁটির ফলেও নখ বসে বা দেবে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দেয়। এ সময় পায়ের বুড়ো আঙুলে চাপ বেশি পড়ে বলে নখ দেবে যায়। এ জন্য বৃষ্টি ও কাদায় বেশি হাঁটাহাঁটি না করাই ভালো। কাদায় হাঁটলে দ্রুত পা ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে নিন। কুসুম গরম জলেতে শ্যাম্পু ও লবণ মিশিয়ে নখ ভিজিয়ে রাখুন। এরপর ব্রাশ করে ত্বকের ময়লা ও মরা চামড়া তুলে ফেলুন। শুধু যে হোঁচট খেয়ে কিংবা কোনো দুর্ঘটনার কারণেই নখ ক্ষতিগ্রস্ত হয় তা নয়, বরং আঁটসাঁট জুতোও নখের ক্ষতির কারণ হতে পারে। এ জন্য আরামদায়ক জুতো পরা জরুরি। আবার এগুলো ছাড়াও বিভিন্ন অসুখ ও ভিটামিন স্বল্পতার কারণেও নখের ক্ষতি হতে পারে। এ জন্য নিয়মিত নখের যত্ন নেওয়ার পাশাপাশি বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া উচিত।এছাড়া,আর্দ্র আবহাওয়ার কারণেও নখ শুষ্ক হয়ে যায়। শুষ্ক নখের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা বেশি। কারণ একটু চাপ কিংবা আঘাতেই নখ ভেঙে যায়। এ জন্য প্রতিদিন ৮-৯ গ্লাস জল পান করুন।এতে শরীরের শুষ্কতার প্রভাব নখের ওপর পড়বে না। শীতের দিনে ঠাণ্ডার ভয়ে অনেকেই গরম জলে স্নান করেন। খেয়াল করুন স্নানের জল যেন বেশি গরম না হয়।অতিরিক্ত গরম জলে স্নান করলে নখ জৌলুস হারাতে পারে।নখের ভেঙে যাওয়া প্রতিরোধে সুন্দর করে নখ কাটা দরকার। ভঙ্গুর নখ কাটার পর ফাইলার ব্যবহার না করাই ভালো। নখ সব সময় একই দিকে ফাইল করুন। অনেকের স্নানের পর নখ কাটার অভ্যাস। এটা করা যাবে না। এতে নখ সহজে ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কা তৈরি হয়।আসলে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতাই নখের সুস্থতার মূল শর্ত। নখের নিচে সহজেই ময়লা জমে যায়। ময়লা থেকে হতে পারে ফাঙ্গাল ইনফেকশন। নখের ওপরের দিক ও ভেতরের দিকের ময়লা নিয়মিত পরিষ্কার করুন। একটু বাড়তি চেষ্টাই দিতে পারে সুন্দর নখের নিশ্চয়তা। চাইলে অলিভ অয়েলও ব্যবহার করতে পারেন। ভিটামিন এ আর ক্যালসিয়াম জাতীয় পদার্থ নখ মজবুত ও ভালো রাখতে সাহায্য করে। তাই প্রতিদিন ভিটামিন এ, এবং ক্যালসিয়ামযুক্ত খাবার খান।