Wednesday, February 21, 2024
লাইফস্টাইলঘুম থেকে উঠে হঠাৎ ঘাড়ে ব্যথা 

ঘুম থেকে উঠে হঠাৎ ঘাড়ে ব্যথা 

 

অনেক সময় ঘুম থেকে উঠেই ঘাড়ে তীব্র ব্যথা অনুভূত হয়।অবস্থা এমন ঘাড় ঘোরানোও কষ্টকর হয়ে দাঁড়ায়।

এই সমস্যা ঘুমের সময় শরীরের অস্বাভাবিক অবস্থান,মানে দীর্ঘ সময় সোফায় হেলান দিয়ে ঘুমানো, ঘুমানোর সময় অস্বাভাবিক উঁচু বালিশ ব্যবহার করা, দীর্ঘ সময় মোবাইল বা টিভি দেখতে দেখতে চেয়ারে ঘুমিয়ে পড়া, উপুড় হয়ে ঘুমানো এবং ঘাড়কে যেকোনো একদিকে বাকিয়ে রাখার কারণে ব্যথা হতে পারে।বলা হয়,অস্বাভাবিক ভঙ্গিতে ঘুমানোর কারণে ঘাড়ের মাংসপেশিতে রক্ত চলাচল সমস্যা হয়।এ কারণে হঠাৎ করে তীব্র ব্যথা অনুভব করতে পারেন।অন্যদিকে হঠাৎ ঘাড়ে প্রচণ্ড ব্যথার অন্যতম কারণ সঠিক নিয়মে বালিশ ব্যবহার না করা। সাধারণত আমরা মাথার নিচে বালিশ দিয়ে ঘুমাতে অভ্যস্ত।কিন্তু এটি সঠিক পদ্ধতি নয়।এতে ঘাড় বাঁকা থাকে এবং মাথা ও ঘাড়ের রক্ত চলাচল কমে যায়। সঠিক নিয়ম হলো মাথা ও ঘাড়ের মধ্যবর্তী স্থানে বালিশ রাখা। অতিরিক্ত শক্ত বা অতিরিক্ত নরম নয়, এ জাতীয় বালিশ ব্যবহার করা।কাত হয়ে ঘুমালে বালিশটা কাঁধ ও ঘাড় বরাবর রাখা উচিত।অন্যান্য কারণের মধ্যে আছে,হঠাৎ ঘাড়কে অস্বাভাবিক পজিশনে বাঁকানো।দীর্ঘ সময় ঘাড় বাঁকিয়ে বা সামনের দিকে ঝুঁকে কম্পিউটার বা প্রফেশনাল কাজে ব্যস্ত থাকা।অস্টিও আর্থ্রাইটিসজনিত সমস্যার কারণে দীর্ঘমেয়াদি ব্যথা হঠাৎ করে বেড়ে যেতে পারে।আবার ঘাড়ের মেরুদণ্ডে দীর্ঘমেয়াদি হালকা ব্যথা, কোনো কারণে নার্ভে চাপ পড়ে হঠাৎ তীব্র ব্যথা হতে পারে।এ ছাড়া আঘাতজনিত কারণে যেকোনো সময় ঘাড়ে তীব্র ব্যথা হতে পারে।এই অবস্থায়,তাৎক্ষণিকভাবে তীব্র ব্যথা কমাতে দু’ পাশের মাংসপেশি অথবা যে জায়গায় ব্যথা করছে সেখানে ঠাণ্ডা বা বরফ সেঁক দেওয়া যেতে পারে। এ ক্ষেত্রে পুরো ১০ থেকে ১৫ মিনিট ঠাণ্ডা বরফ প্রয়োগ করতে হবে।দু’-এক দিনের মধ্যে উন্নতি না হলে নিয়মিত সকালে ও রাতে ১০ থেকে ১৫ মিনিট গরম সেঁক দেওয়া যেতে পারে।পাশাপাশি ব্যথা বাড়ায় এমন ভঙ্গিমা করা থেকে বিরত থাকতে হবে।সেই সঙ্গে স্বাভাবিক ব্যথার ওষুধ খাওয়ার পরে দু’ বেলা করে পাঁচ থেকে সাত দিন খাওয়া যেতে পারে।এসব ক্ষেত্রে গ্যাস্ট্রিকের ওষুধ সেবন করার প্রয়োজন হতে পারে।তিন থেকে পাঁচ দিনের মধ্যে ব্যথা না কমলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে।

More News

বন্ধ নাকে রাতের ঘুম উধাও

0
শীতকালে সর্দি-কাশি, নাক বন্ধের সমস্যা লেগেই থাকে। অন্যদিকে তাপমাত্রা পড়তেই ঘরে ঘরে জ্বর, সর্দি-কাশিতে ভুগছেন...

ইউরিক অ্যাসিডে হলুদের গুণ

0
হাঁটতে গেলেই পায়ের আঙুলে ব্যথা, গোড়ালিতে ব্যথা কিংবা অস্থিসন্ধি ফুলে গিয়ে অসহ্য যন্ত্রণা,এমন উপসর্গ মাঝেমধ্যেই...

ডিসমেনোরিয়ায় রোগ ছাড়াই ব্যথা

0
বয়ঃসন্ধিকালে শরীরে নানা পরিবর্তন ঘটে; এর মধ্যে প্রথমে আসে শারীরিক পরিবর্তন, মানসিক পরিবর্তন এবং এরপর ধাপে ধাপে চলে আসে কৈশোরের শেষ প্রাপ্তি হিসেবে আসে মেনস্টুরেশন বা ঋতুস্রাব। সাধারণত ১১ থেকে ১৩ বছরের মধ্যে ঋতুস্রাব শুরু হয়। ডিসমেনোরিয়া বা ব্যথামুক্ত ঋতুস্রাব একটি সাধারণ ইস্যু।ডিস মানে কষ্টকর, মেনো মানে মেনস্টুরেশন, রিয়া মানে প্রবাহ।...