নতুন ধারণা মেটাভার্স

0
24

খুব দ্রুত প্রযুক্তি জগতের বহুল ব্যবহৃত একটি শব্দে পরিণত হচ্ছে,মেটাভার্স। সম্প্রতি ফেসবুক জানিয়েছে,ইউরোপে মেটাভার্স তৈরি চেষ্টার অংশ হিসেবে দশ হাজার কর্মী নিয়োগ করবে তারা।

অন্যদিকে,মাইক্রোসফট, রোব্লক্স ও এবং ফোর্টনাইট নির্মাতা এপিক গেমস-ও ব্যস্ত নিজেদের ভার্শনের মেটাভার্স তৈরির পরিকল্পনা নিয়ে।কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, মেটাভার্স আদতে কী?অনেক কল্পবিজ্ঞান বই ও চলচ্চিত্রেই দেখানো হয় মানুষ পুরোপুরি নিজেদের তৈরি এক দুনিয়ায় ডুবে রয়েছেন।সেখানে আরও দেখা যায়,বাস্তব দুনিয়া ও মেটাভার্সের মধ্যে দৃশ্যত কোনো পার্থক্য নেই। আলাদা করারও তেমন কোনো উপায় নেই।এরকম বই ও চলচ্চিত্রের উদাহরণ রয়েছে অসংখ্য।কিন্তু মেটাভার্সের বর্তমান বাস্তবতা সে অবস্থা থেকে এখনও অনেকটাই দূরে।ইন্টারনেটে ভার্চুয়াল জগতগুলো দেখলে বাস্তব জগতের বদলে সম্ভবত ভিডিও গেমের কথাই মনে আসবে প্রথমে।মেটাভার্স মূলত ব্যাপক অর্থে ব্যবহৃত একটি পরিভাষা।সাদামাটা অর্থে, ইন্টারনেটের মাধ্যমে প্রবেশ করা যাবে এমন ,শেয়ার্ড ভার্চুয়াল পরিবেশ বলা যেতে পারে একে।ভার্চুয়াল রিয়ালিটি,ভিআর বা অগমেন্টেড রিয়ালিটি ,এআর ব্যবহার করে প্রাণবন্ত করে তোলা হয়েছে এমন কোনো ডিজিটাল স্থান বুঝাতেও অহরহ ব্যবহার করা হয়ে থাকে,মেটাভার্স শব্দটি।অনেকে আবার মেটাভার্স বলতে সুনির্দিষ্টভাবে গেমিং জগতকে বুঝিয়ে থাকেন, যেখানে প্রত্যেক ইউজারের একটি চরিত্র থাকবে যা ঘুরে-ফিরে বেড়াতে পারবে এবং অন্য খেলোয়াড়দের সঙ্গে কথা বলতে ও নানা কর্মকাণ্ডে অংশ নিতে পারে।এদিকে, পুরোপুরি ব্লকচেন প্রযুক্তি নির্ভর সুনির্দিষ্ট ঘরানার আলাদা মেটাভার্সই রয়েছে। এ ধরনের মেটাভার্সে ক্রিপ্টোকারেন্সি খরচ করে ভার্চুয়াল জমি এবং অন্যান্য ডিজিটাল সম্পদ কিনতে পারেন ইউজাররা। এখন মানুষ যোগাযোগের ক্ষেত্রে অনলাইনের বিভিন্ন ওয়েবসাইট ব্যবহার করেন। যেমন,সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বা মেসেজিং অ্যাপ্লিকেশন ইত্যাদি।কিন্তু মেটাভার্সের ধারণাটিই হলো এমন একটি অনলাইন স্থানের যেখানে মানুষের যোগাযোগ হবে বহুমাত্রিক।ইউজাররা এ ধরনের স্থানে কন্টেন্ট শুধু দেখা নয়, তাতে পুরোপুরি নিজেকে নিমজ্জিত করে ফেলতে পারবেন।মেটাভার্সের প্রতি মানুষের বাড়তি আগ্রহকে কোভিড-১৯ মহামারীর একটি ফল-ও বলা যেতে পারে।