ক্যান্সারের প্রতিষেধক: আর এক ধাপ

0
79
Cancer Research

Last Updated on by

ক্যান্সারে গোটা বিশ্বে প্রতি বছর লক্ষ লক্ষ মানুষের মৃত্যু হয়। ক্যান্সারে আক্রান্তকে মৃত্যুর হাত থেকে বাঁচানো সম্ভব। কিন্তু তার জন্য রোগটি প্রাথমিক পর্যায়ে শনাক্ত করা খুবই জরুরী।বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই তৃতীয় বা চতুর্থ পর্যায়েক্যানসার ধরা পড়ে। এই পরিস্থিতিতে ক্যান্সারের চিকিত্সা বা মোকাবিলা করা প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়ে।তবে ক্যান্সার রোধে আরও এক ধাপ এগিয়েছে আধুনিক চিকিত্সা বিজ্ঞান। দীর্ঘদিন ধরেই ক্যান্সারের প্রতিষেধকআবিষ্কারের চেষ্টায় অবিরাম গবেষণা করে চলেছেন বিজ্ঞানীরা। এ বার তার পরীক্ষামূলক প্রয়োগ করা হয়েছে কুকুরের উপর। বিজ্ঞানীদের বিশ্বাস, এই পরীক্ষা সফল হলে তা কার্যকর হতে পারে মানুষের শরীরেও।  ১২ বছরেরগবেষণার পর এক দল মার্কিন বিজ্ঞানী আবিষ্কার করেছেন ক্যান্সারের প্রতিষেধক যা কেমোথেরাপি, ইমিউনোথেরাপি ছাড়াই শরীরে ক্যান্সারের কোষের বৃদ্ধি বন্ধ করতে সক্ষম। আমেরিকায় অ্যারিজোনায় অবস্থিত,বায়ো ডিজাইন ইনস্টিটিউট-এর একদল বিজ্ঞানী নিয়েছেন ক্যান্সার প্রতিরোধে প্রথম পদক্ষেপ।

পরীক্ষার জন্য তাদের অভিভাবকদের অনুমতি নিয়ে মোট ৮০০টি কুকুর বেছে নেওয়া হয়েছে। প্রাথমিক নানা স্বাস্থ্য পরীক্ষার পর ৮০০টি কুকুরকেক্যান্সারের টিকা দেওয়া হয়েছে। এর পর এদেরকে নির্দিষ্ট পর্যবেক্ষণের মধ্যে রাখা হবে। কিন্তু ক্যান্সার প্রতিষেধকের পরীক্ষার জন্য কেন কুকুরকেই বেছে নেওয়া হল? বায়ো ডিজাইন ইনস্টিটিউট-এর গবেষক স্টিফেন জনস্টন ও ডুগথ্যাম জানিয়েছেন , কুকুর আর মানুষের শরীরের প্রকৃতি অনেকটা এক। কুকুরের খাবার, ওষুধপত্র, সবই প্রায় একই ধরনের। গবেষণায় দেখা গিয়েছে, মানুষ আর কুকুরের শরীরে ক্যান্সার ছড়িয়ে পড়ার ধরণও প্রায় একই রকম।তাই  কুকুরের শরীরে যদি এই প্রতিষেধক কাজ করে, তাহলে মানুষের শরীরেও ক্যান্সারের কোষের বৃদ্ধি ঠেকাতে সক্ষম হবে এটি। এখন এই প্রতিষেধকের সাফল্যের দিকে তাকিয়ে বিজ্ঞানীরা। কারণ, এই টিকার প্রয়োগ সফল হলেক্যান্সারের বিরুদ্ধে লড়াই অনেকটাই সহজ হয়ে যাবে।