গরিব দেশগুলির কাছে ভ্যাকসিন পৌঁছে দেওয়ার কাতর আবেদন, হু প্রধানের 

0
10

করোনা মোকাবিলায় তুলনামূলক গরিব দেশগুলির হাতে করোনার ভ্যাকসিন তুলে দেওয়ার কাতর আর্জি জানিয়েছেন, হু-র প্রধান টেডরস আধানম। সম্প্রতি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা হু জানিয়েছে, প্রয়োজনের তুলনায় টিকা পাচ্ছে না বিশ্বের গরিব দেশগুলি। যার ফলে সেই দেশে করোনা দ্রুত গতিতে ছড়িয়ে পড়ছে। বাড়ছে ভাইরাসের মিউটেশনের সমস্যাও।

 

এইজন্য ফের একবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা উদ্বেগ প্রকাশ করে জানিয়েছে উন্নত দেশগুলি কমবয়সীদের ভ্যাকসিন দিচ্ছে, যাঁরা করোনা ঝুঁকির বাইরে তবু গরিব দেশগুলির হাতে ভ্যাকসিন তুলে দিচ্ছে না। হু-র প্রধান টেডরস আধানম জানিয়েছেন, সারা বিশ্বে ক্রমশ ছড়াচ্ছে করোনার ডেল্টা স্ট্রেন। অন্যদিকে, আফ্রিকায় এই প্রজাতির ফলে গত সপ্তাহের থেকে ৪০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে করোনা আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। ভয়াবহ পরিস্থিতিতেও গরিব দেশ টিকা পাচ্ছে না। এইডসের তুলনা টেনে তিনি বলেছেন, অনেক দেশের ধারণা আফ্রিকার দেশগুলি টিকার ব্যবহার করতে পারবে না। এই মনোভাবে পরিবর্তন আসা উচিত। তাঁর মতে, উন্নত দেশগুলির এই কাজ বৈষম্যকে বারবার চোখে আঙুল দিয়ে দেখাচ্ছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার আপদকালীন বিশেষজ্ঞ মাইক রায়ান উন্নত দেশগুলির মনোভাবে প্রশ্ন তুলে বলেছেন, উন্নত দেশগুলি তথাকথিত গরিব দেশগুলিকে ভ্যাকসিন দিচ্ছে না কারণ তারা ভালভাবে ব্যবহার করতে পারবে কি না সেই সন্দেহে, অতিমারি আবহে এটা কি মানা যায়? গরিব দেশগুলি যাতে করোনা টিকা পায়, তাই উন্নত দেশগুলি কোভ্যাক্স ও গাভি তৈরি করেছিল। গত ফেব্রুয়ারি থেকে এর মাধ্যমে একাধিক কম উন্নত দেশে ৯ কোটি ভ্যাকসিনের ডোজ়ও পৌঁছেছিল। কিন্তু ভারত করোনা টিকা রফতানি নিষিদ্ধ করার পর থেকেই গাভি বা কোভ্যাক্সে জোগান নেই। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সিনিয়র উপদেষ্টা ব্রুস অলওয়ার্ড জানিয়েছেন, এই মাসে অ্যাস্ট্রাজ়েনেকা, সিরাম ইনস্টিটিউট কিংবা জনসন অ্যান্ড জনসনের একটিও টিকা কোভ্যাক্সে যায়নি। তাই পরিস্থিতি অত্যন্ত ভয়াবহ হয়ে উঠছে ক্রমশ।