ভুয়ো তথ্য প্রচারের ‘মাধ্যম’ ইউটিউব

0
6

নিজস্ব প্ল্যাটফর্মে ভুয়ো তথ্যের প্রচার বন্ধে যথেষ্ট তৎপর নয় ইউটিউব,শীর্ষ ভিডিও স্ট্রিমিং সার্ভিসের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ তুলেছে তথ্য যাচাই করে এমন ৮০টি সংগঠন।গুগলের মালিকানাধীন ইউটিউবের সি ই ও, সুজান ওজসিকি’র কাছে চিঠি লিখেছে ওই সংগঠনগুলো।

চিঠিতে ইউটিউবকে, বিভ্রান্তিকর ও ভুয়ো তথ্যের সবচেয়ে বড় মাধ্যমগুলোর একটি হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন তারা।টিকা বিমুখ করে এমন কনটেন্ট এবং নির্বাচনী ভুয়ো তথ্য প্রচারের মতো বিষয়গুলোতে ইউটিউবের আরো শক্ত পদক্ষেপের দাবি তুলেছে সংগঠনগুলো। চিঠিতে স্বাক্ষরকারী সংগঠনগুলোর মধ্যে ওয়াশিংটন পোস্টের তথ্য যাচাইকারী দল ও ব্রিটেনের দাতব্য সংস্থা,ফুল ফ্যাক্ট’সহ ইউরোপ, আফ্রিকা, এশিয়া এবং মধ্যপ্রাচ্যের সংগঠন রয়েছে।ইউটিউব নিজস্ব প্ল্যাটফর্মে ভুয়ো তথ্য প্রচার বন্ধে যথেষ্ট পদক্ষেপ নিচ্ছে না বলে অভিযোগ সংগঠনগুলোর।তাদের ভাষায়,নীতিবর্জিত লোকজনকে প্ল্যাটফর্মটিকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহারের সুযোগ করে দিচ্ছে,ইউটিউব।কনটেন্ট ইংরেজি ভাষার না হলে এবং উন্নয়নশীল দেশ থেকে হলে,সেক্ষেত্রে জটিলতা আরো বাড়ে অভিযোগ করা হয়েছে।চিঠিতে ইউটিউবের নীতিতে ধরা পড়েনি,বিশ্বের বিভিন্ন জায়গা থেকে এমন বাস্তবিক উদাহরণ টেনেছে সংগঠনগুলো। সংগঠনগুলোর অভিযোগ, যথেষ্ট নয় ইউটিউবের নীতি,ক্ষেত্রবিশেষে এটি সম্পূর্ণ অকার্যকর।উল্লেখ্য,কোভিড-১৯ মহামারী চলাকালীন ভাইরাস এবং টিকা প্রসঙ্গে ইউটিউবসহ ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ এবং টুইটারের মতো সামাজিক মাধ্যমগুলোতে ভুয়ো তথ্যের প্রচার বেড়েছে বলে অভিযোগ।